ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নিজ গ্রামে অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন ব্যাংকার শামীম আহমেদ

0
275
ব্রাক্ষনবাড়িয়ায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলে ব্যাংকার শামীম আহমেদ।শামীম আহমেদ তাঁর প্রিয় জন্মভূমি ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে এই কার্যকম করেন ১৫ মে ২০২০। করোনা মাহামারীর কারণে অনেক পরিাবারে আয় রোজগার বন্ধ থাকায় খুব কষ্টে জীবন অতিবাহিত করছেন।

তিনি তাঁর ফেসবুক এ এভাবেই অনুভূতি ব্যক্ত করেন :

[ নিজ গ্রাম দক্ষিণ তারুয়ার কিছু অসহায় মানুষের মাঝে সামান্য খাদ্য সামগ্রী বিতরনের মাধ্যমে তাদের মুখে হাসি ফুটাতে পেরে আজ নিজের কাছে অনেক ভালো লাগছে, যা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না।অল্পতেই মানুষগুলো ভীষণ খুশি।তাদের খুব বেশি চাওয়া পাওনা নাই। দুইবেলা দুমুঠো ভাত, আর মাথার উপর একটি ছাদ।

আমার জন্মভূমির এই মানুষগুলোর খুশির কৃতিত্ব কিন্তু আমার একার নয়। আমার লন্ডনের ফেসবুক বন্ধু সিলেটের রোমেনা বেগম, ইতালীর বন্ধু ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কবির আহমদ ভাই, আপন ছোট ভাই কৃষিবিদ রায়হান আহমেদ এবং আমিসহ আমরা চার জনের।

তাছাড়া এই কাজে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সহযোগিতা করেছেন বন্ধু মোহাস্মদ ফারুক।তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সন্তান।উনি নিজে বাইক চালিয়ে ঢাকা থেকে আমাকে আমার নিজ গ্রামে নিয়ে যান।তবে কিছু সময় আমি নিজেও বাইক চালিয়েছি। কাজ করতে গিয়ে একসময় দুইজনই ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম।তারপরেও বিন্দু মাত্র খারাপ লাগেনি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর থেকে খাদ্য সামগ্রী গুলো কেনাকাটা করা, প্যাকেট করা এবং ট্রান্সপোর্টের ব্যবস্হা করে দেন প্রিয় বন্ধু উত্তর পৈরতলার শফিক আহমেদ।

গতকাল শুক্রবার ১৫ তারিখ নিজ গ্রামে মোট ৪৭ জন অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী দিতে পেরেছি।তাছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের উত্তর পৈরতলা একটি পরিবার, দক্ষিণ পৈরতলার একটি পরিবার,মাছিহাতা গ্রামের একটি পরিবার সহ মোট ৫০ টি পরিবারের জন্য আমাদের এই ক্ষুদ্র আয়োজন।এর মাঝে নিজ গ্রাম দক্ষিন তারুয়ার চারটি পরিবারের মাঝে নিজে কাঁধে করে খাদ্য সামগী পৌছিয়ে দিয়েছি।মানুষগুলো খুবই খুশি হয়েছেন।

মানুষগুলো ভীষণ অসহায়।মুখ ফুটে কিছু বলতেও পারেনা। আবার খিদের জ্বালায় সহ্যও করতে পারছেনা।

আসুন সবাই মিলে অসহায় মানুষগুলোর পাশে এসে দাঁড়াই।]

শামীম ভাই যমুনা ব্যাংক এ ফার্স্ট এসিসট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি এর আগে রাস্তায় পড়ে থাকা অনেক মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষকে কুড়িয়ে এনে সু্স্থ করে তোলার দায়িত্ব পালন করেছেন।

মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষদের নিয়ে ২০১৪ সাল থেকে কাজ করে আসছেন ব্যাংকার শামীম আহমেদ। লোকমুখে তিনি পাগলের বন্ধু হিসেবে খ্যাত। সুযোগ পেলে অন্যান্য সেবামূলক কাজও তিনি করে থাকেন মাঝে মাঝে।

এরকম আরো সংবাদ পড়তে ক্লিক করুন

একটি রিপ্লাই দিন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.